একটু বৃষ্টিতেই রাস্তায় বর্ষার হাতছানি, জলাবদ্ধতা! দুর্ভোগে শিধুলীবাসী

মোঃ সোহাগ আরেফিন গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি

0 291

গুরুদাসপুর উপজেলার ধারাবারিষা ইউনিয়নের শিধুলী গ্রামের একমাত্র পিচঢালা পাকা রাস্তা দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে।

এই সড়কের দু’পাশে সড়ক থেকে উঁচু হওয়ায় সামান্য বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এতে দুর্ভোগে পড়েছে সিএনজি-অটোরিকশাসহ ছোট ছোট পরিবহন চালক, চলাচলকারী যাত্রী ও এলাকাবাসী।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, শিধুলী বাজার হতে বাস্তলতোলা মোড় যেতে সড়কের মাঝ বরাবর প্রায় ৫শ ফুট রাস্তা পানিতে পরিপূর্ণ হয়ে গেছে। একাধিকবার বিভিন্ন দপ্তরে ধর্না দিয়ে ও বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় নিউজ প্রকাশিত হলেও কর্তৃপক্ষ কোন ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।রাস্তাটি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষের যোগাযোগের মাধ্যম হলেও বর্তমানে চরম দুর্ভোগ ও ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখাযায়, সড়কের মাঝামাঝি অংশের আবু সামার বাড়ি থেকে মান্নান মহুরীর বাড়ি পর্যন্ত সড়ক বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে। দেখে মনে হচ্ছে যেন এক জলাশয়! কিন্তু জলাশয় নয়! বরং এটি পিচঢালা পাকা রাস্তা। সামান্য বৃষ্টির পানি জমে সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতা।

এ জলাবদ্ধতার মাঝেই এ সড়কে সিএনজি, অটোরিকশাসহ নানা ধরনের ছোট ছোট পরিবহন যাতায়াত করছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে এ রাস্তার যাত্রীরা। খানাখন্দে ভরা এ রাস্তার কারণে সড়ক দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া এ রাস্তা দিয়ে বাণিজ্যনগরী চাঁচকৈড় বাজার,শিধুলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, গুরুদাসপুরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ুয়া শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ যাতায়াত করে।

একটু বৃষ্টিতেই যেন বর্ষার হাতছানি, জলাবদ্ধতা! দুর্ভোগে গুরুদাসপুরবাসী

কিন্তু এই মৌসুমে বৃষ্টির পানিতে রাস্তাটি জলাবদ্ধ থাকার কারণে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে যেতে পারছে না শিক্ষার্থীরা। প্রতিষ্ঠানে যাবার পথে তাদের পরিধেয় বস্ত্র নষ্ট হয়ে যায়। পড়ে গিয়ে বিব্রতকার পরিস্থিতির শিকার হতে হয় অনেককে। এ জন্য দ্রুত এ রাস্তা সংস্কারের দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

ইউপি সদস্য সেলিম রেজা বলেন, রাস্তার এ বেহাল দশার কারণে এখন অনেকেই এ পথে চলাচলে আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে।

মোটরসাইকেল চালক আনিছুর রহমান বলেন, এ রাস্তা দিয়ে মোটরসাইকেল নিয়ে দিনের বেলায় কোনোরকম চলাচল করলেও রাতের বেলা সম্ভব নয়।

ভ্যান চালোক উমর ফারুক বলেন,জায়গায় জায়গায় গর্ত ও পানির কারনে ভ্যান নিয়ে যাতায়াত করতে খুব কষ্ট হচ্ছে।

ধারাবারিষা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন মাস্টার জানান, এলাকার গণমানুষের দুর্ভোগ লাঘবের জন্য একাধিকবার পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা নিয়েও ব্যক্তি মালিকানা জায়গার কারনে তারা দিতে রাজি না হওয়ায় পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা গ্রহনের বিষয়টি সম্ভব হয়নি। রাস্তা সংস্কারের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.